পোস্টগুলি

এপ্রিল, ২০১৯ থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

প্রাণী প্রেমের নামে আমাদের হত্যা করা হয়েছে - মলি (২০১৭ - ১১ জুন, ২০২০) এবং হুলো

ছবি
গত মে মাসের শেষের দিক থেকে কি মানসিক চাপের মধ্য দিয়ে আমাকে যেতে হয়েছে, এবং এখনও হচ্ছে। আশা করছি আমি আর কি পদক্ষেপ নিতে পারি তা জানিয়ে আমাকে সাহায্য করবেন। আমার দুটি পোষা বেড়ালের মধ্যে হুলো এবং অপরটির নাম ছিলো মলি। হঠাৎ করে আমি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ায়, আমার পক্ষে ওদের লালন-পালন কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। এই অবস্থায় আমি কুকুর-বিড়াল লালন-পালনকারী বিভিন্ন গ্রুপে আমার বেড়াল দুটোকে নিয়ে সাহায্য করার ব্যাপারে ফেইসবুকে পোস্ট দিতে থাকি (এপ্রিল ২, ২০২০ তারিখ থেকে)। এই ব্যাপারে আমি “কেয়ার ফর পজ”, ডাক্তার সিয়ামাক, ডাক্তার লুতফুর এবং বিভিন্ন বন্ধু বান্ধবদের সাহায্য প্রার্থনা করি। এক মাসেরও বেশী সময় কারো সহায়তা না পেয়ে আমি অবশেষে এক জোড়া স্বর্ণের কানের দুল দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ফেইসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে পুনরায় পোস্ট দেয়া শুরু করলাম (২৩ মে, ২০২০ তারিখে)। আমি বেশী অসুস্থ হয়ে পড়ছিলাম, এবং বেড়াল দুটি ও অসুস্থ হয়ে পড়বে এই আশঙ্কা করছিলাম। স্বর্ণের কানের দুলের কথা এবং একটি বেদেশি বেড়াল এর ছবি দেখে আমার পোস্টটি অনেকের নজরে আসে। একটি গ্রুপে আমার পোস্টটি দেখে অথৈ নামের একটি মেয়ে তাদের নেয়ার ব্যাপারে আগ্

বিগিনারদের জন্যে ফটোগ্রাফি: একটি সূচনামূলক গাইড | A Beginner's Guide to Photography

ছবি
ক্যামেরা একটা জটিল জিনিষ বটে! আমি আমার প্রথম ডিএসএলআর (DSLR) নিয়ে খুবই হতাশ হচ্ছি। সংগ্রামও করছি। আমার ভিউ-ফাইন্ডারের মাধ্যমে যা দেখছি, তা ঠিক ক্যাপচার করতে পারছি না। কিন্তু হাজার হাজার ট্রায়াল এবং এরর এর মাধ্যমে এখন একটু একটু যেন ধরতে পারছি। এখন মনে হয় যেন একটু একটু বুঝতে পারছি, এবং কিছু কিছু মোটামটি ভাল ছবিও তুলতে পারছি বলে আমার ধারনা। এই পোস্টে, আমি আমি আমার পরীক্ষানিরীক্ষা এবং ভুলভ্রান্তি গুলো থেকে যা শিখেছি, তা আপনাদের সাথে শেয়ার করব। Photo by Kobu Agency on Unsplash ক্যামেরাতে আলো প্রবেশ করার তিনটি ধাপ প্রথম ধাপ অ্যাপারচার হচ্ছে লেন্স এর ভিতরের গর্তের পরিধি। অ্যাপারচারে কোন পরিবর্তন এই গর্তের আকারকেও পরিবর্তিত করে, ফলে পরিবর্তন করে ক্যামেরাতে কত টুকু আলো প্রবেশ করবে। দ্বিতীয় ধাপ দ্বিতীয় ধাপে আয়নাটা উপরে উঠে যায় এবং শাটার খুলে যায়, এবং রেকর্ড করতে কত খানি আলো সেন্সরে আছে। যেই স্পিডে এটা হয়ে থাকে ডিটারমাইন করে এক্সপোজারের লেনথ এমনকি মোশান ব্লার। তৃতীয় ধাপ সেন্সর আলো কে ক্যাপচার করবে এবং আইসো সেই আলোকে নিয়ন্ত্রণ করবে। আইসো যত

পিক্সেলেন্ট এর পক্ষ থেকে নববর্ষের শুভেচ্ছা -১৪২৬

ছবি
পিক্সেলেন্ট এর পক্ষ থেকে নববর্ষের শুভেচ্ছা -১৪২৬ পিক্সেলেন্ট ফেইসবুক গ্রুপের মেমবারদের জমা দেয়া ছবি দিয়ে এই ভিডিওটি করা হয়েছে। আপনাদের চমৎকার ছবি জমা দেয়ার জন্যে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। নতুন বৎসরের জন্যে শুভ কামনা রইল। শুভ নববর্ষ!   Posted by পিক্সেলেন্ট ফটোগ্রাফি on Saturday, April 13, 2019 বিশেষ বিজ্ঞপ্তি/Special Announcement    (প্রাইজ, প্রাইজ, প্রাইজ এবং সম্মান - PRIZE PRIZE PRIZE AND HONOR) পহেলা মে ২০১৯ (01 May, 2019), এপ্রিল (২০১৯) মাসে আপনাদের জমা দেয়া সব চেয়ে প্রশংসিত (সব চেয়ে বেশী লাইক, কমেন্ট এবং গ্রুপ সদস্যদের ভোট পাওয়া) ছবির ফটোগ্রাফারের নাম ঘোষণা করা হবে, এবং উনার জন্যে থাকবে একটি পুরষ্কার । এবং বিজয়ী ছবিটি ফটোগ্রাফারের নাম সহ এই গ্রুপে পিন্ড পোস্ট হিসেবে থাকবে এক সপ্তাহ।  সেদিন টপ কন্ট্রিবিউটারদের নামও উল্লেখ করা হবে। টপ কন্ট্রিবিউটাররা হচ্ছেন গ্রুপের সে সব সদস্যগন, যারা সব চেয়ে বেশী অ্যাকটিভ থাকবেন এপ্রিল (২০১৯) মাসে - উনাদের পোস্ট দিয়ে, গ্রুপের অন্য সদস্যদের সঠিক তথ্য দিয়ে, বা অন্য সদস্যদের ছবির উপর সঠিক পরামর্শ দিয়ে - এ

মুক্তিযুদ্ধের বন্ধু ফটোজার্নালিস্ট রঘু রায়ের সম্প্রতি বাংলাদেশ সফর| Friends of Liberation Raghu Rai's recent visit to Bangladesh

ছবি
ভারতীয় ফটোজার্নালিস্ট ও মর্যাদাসম্পন্ন ম্যাগনাম ফটোর সদস্য রঘু রায় - বাংলাদেশীদের কাছে যিনি ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়কার ছবিগুলোর জন্য সমধিকপরিচিত, যাঁকে মুক্তিযুদ্ধের বন্ধু সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে সম্প্রতি সফর করে গেলেন বাংলাদেশ দৃকের ছবিমেলার সৌজন্যে।  Bangladesh. 1971. The Price of Freedom রঘু রায়ের (Raghu Rai) জন্ম ১৯৪২ সালে ঝাং নামের এক ছোট্ট গ্রামে যা এখন পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত। ফটোগ্রাফি শুরু করেন ১৯৬৫ সালে আর পরের বছরই স্টেটসম্যান (Statesman) পত্রিকায় চীফ ফটোগ্রাফার হিসাবে যোগদান করেন। হেনরি কারতিয়ে ব্রেসওঁ (Henri Cartier-Bresson) ওনাকে ১৯৭৭ সালে ম্যাগনামে যোগদানে আহবান জানান ১৯৭২ সালে প্যারিসে হওয়া প্রদর্শনীতে রায়ের কাজ দেখে। ১৯৭৬ সালে স্টেটসম্যান ছাড়ার পর রায় কাজ করেন কলকাতা থেকে প্রকাশিত 'সানডে' (Sunday) নামের সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনে পিকচার এডিটর হিসাবে। ১৯৮০ সালে সেটিও ছেড়ে যোগদেন ইন্ডিয়া টু’ডেতে (India Today) পিকচার এডিটর/ভিজুয়ালাইজার/ফটোগ্রাফার হিসাবে এর বাল্যবেলায়, যা আজ ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী ম্যাগাজিন। তিনি ওখানে ১৯৮২-১৯৯১ পর্যন্ত কাজ করেছিল

মারা গেলেন বিশ্বসেরা চুম্বন আলিঙ্গনের ছবির নায়ক | Dies The Hero Of The Most Famous Kissing Picture In The World

ছবি
The Kissing Sailor, George Mendonsa, seen here in a slightly different picture from the image that made Life magazine, has died. He was 95.Photograph: Victor Jorgensen/AP , George Mendonsa, The Kissing Sailor in famous photograph, dies at 95 ৮ই ফেব্রুয়ারী ২০১৯ সাল, মারা গেলেন জর্জ মেনদনসা (George Mendonsa)।  উনি হচ্ছেন সেই ব্যক্তি যিনি বিখ্যাত হয়েছিলেন সিদ্ধহস্ত আলোকচিত্র শিল্পী আলফ্রেড আইসেনটেডের (Alfred Eisenstaedt) ক্যামেরায় আটক হয়ে।ছবিটির নাম, "The Unconditional Surrender"। একটা চাঞ্চল্যকর ছবি বটে। আমেরিকার টাইমস স্কয়ারে প্রকাশ্য রাজপথে এক যুবতীকে জড়িয়ে ধরে চুম্বনে শিক্ত করে তুলছেন। চরম মুহূর্তটিকে ফটোশিল্পী আলফ্রেডের কৌশলী হস্ত ক্ষেপন করে নিলেন অতি দক্ষতার সাথে। তোলপাড় শুরু হল বিশ্বময়, এ কেমন কথা, এ কেমন ছবি। কিন্তু এ ছবিটিই হয়ে উঠল আমেরিকায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ বিজয়োল্লাসের জাতীয় প্রতীক হিসাবে।  কে এই নারী, কে এই পুরুষ? ছবিতে বোঝা যাচ্ছিল না। কেবল দেখা যাচ্ছিল একটি চুম্বনের বিমূর্ত আবেদনের মূর্ত প্রতীক।  শিল্পী আলফ্রেডও জানাতে পারলেন না কারা এরা। তব